asdsadsadsa খনির ৫২ শ্রমিকের করোনা শনাক্ত, কয়লা উত্তোলন বন্ধ - Alochitobangladesh
বুধবার, ১০ আগস্ট ২০২২ । ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯

খনির ৫২ শ্রমিকের করোনা শনাক্ত, কয়লা উত্তোলন বন্ধ

অনলাইন ডেস্ক »

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে কর্মরত কয়েকদিনের পরীক্ষায় চীনা ও বাংলাদেশি ৫২ জন শ্রমিকের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। ফলে করোনা নির্মূলে বিভিন্ন কাজের পাশাপাশি পরীক্ষামূলক কয়লা উত্তোলন সাময়িক বন্ধ রেখে আন্ডারগ্রাউন্ডে এডজাস্টমেন্ট সংক্রান্ত কাজ চলমান রয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিমিটেডের (বিসিএমসিএল) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. সাইফুল ইসলাম সরকার।

তিনি জানান, করোনা সংক্রমন দেখা দেওয়ায় শনিবার সকাল থেকে পরীক্ষামূলক কয়লা উত্তোলন সাময়িক বন্ধ রাখা হয়েছে। এর আগে গত ২৭ জুলাই সকাল থেকে পরীক্ষামূলকভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু হয়। যা আগামী ৪ থেকে ৫ দিনের মধ্যেই পূর্ণাঙ্গ উৎপাদনে যাওয়ার কথা ছিল।

তিনি আরও জানান, যারা করোনা আক্রান্ত চীনা শ্রমিকদের সংস্পর্শে গেছেন, তারা এখন খনির বাইরে আইসলোসনে আছেন। করোনা নিয়ন্ত্রণে আনতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের খনির বাইরে রাখা হয়েছে। তারা করোনামুক্ত হলে খনিতে প্রবেশ করানো হবে। তবে যারা আক্রান্ত নন, তাদের দিয়ে কয়লা উত্তোলনের কূপের উন্নয়ন কাজ করানো হচ্ছে।
গত ২৭ জুলাই বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির নতুন কূপে কয়লা উত্তোলন কার্যক্রম শুরু করে কর্তৃপক্ষ। খনিতে ৩০০ জন চীনা ও ৪০০ জন বাংলাদেশি শ্রমিক অবস্থান করছিলেন। এর মধ্যে ২৬ জুলাই দেশী ১৪৩ জন শ্রমিকের নমুনা পরীক্ষায় ১৬ জনের করোনা পজিটিভ আসে। ২৮ জুলাই ২৯৩ জন চীনা ও ১৩ জন বাংলাদেশি শ্রমিকের করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এদের মধ্যে ৩৪ জন চীনা ও ২ জন বাংলাদেশি শ্রমিকের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি সুত্র জানায়, কয়লা খনির পরিত্যক্ত ফেজ থেকে নতুন ফেজের যন্ত্রপাতি স্থানান্তর ও সংস্কার কাজের জন্য গত ১ মে খনির ১৩১০ নম্বর ফেজ (কূপ) থেকে কয়লা উত্তোলন বন্ধ করা হয়। পরে টানা ২ মাস ২৭ দিন বন্ধ থাকার পর বুধবার নতুন ১৩০৬ নম্বর ফেজে পরীক্ষামূলকভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু করা হয়। গত বুধবার সকালে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল আহসান ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে এ কয়লা উৎপাদন উদ্বোধন করেন। সে সময় বলা হয়েছিল, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে যন্ত্রাংশ অ্যাডজাস্টমেন্টসহ সকল প্রক্রিয়া শেষে পুরোপুরি উৎপাদনে যেতে প্রায় সপ্তাহ খানিক লাগতে পারে। পুরোপুরি উৎপাদন চালু হলে প্রতিদিন ২ হাজার ৮০০ থেকে ৩ হাজার টন কয়লা উৎপাদন করা সম্ভব হবে।

শেয়ার করুন »

অনলাইন ডেস্ক »

মন্তব্য করুন »

Men who abuse anabolic steroids risk long-term testicular problems even after they quit best australian steroid site anaboteen anabolic duo