দুমকিতে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

দুমকি (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর দুমকিতে লামিয়া আক্তার (২৩) নামের এক গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘটেছে। মঙ্গলবার রাতে উপজেলার লেবুখালী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ফোরকান মাদবরের বসতঘর থেকে দুমকি থানা পুলিশ ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাতেই পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। এ ব্যাপারে দুমকি থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

থানা পুলিশ জানায়, লেবুখালী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ফোরকান মাদবরের ছেলে রাব্বি মাদবরের স্ত্রী লামিয়া আক্তার মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করেছে বলে খবর দেয়া হয়। খবর পেয়ে রাত ১২টার দিকে পুলিশ রাব্বি মাদবরের বসতঘরের খাটের ওপর কম্বলে ঢেকে থাকা গৃহবধূর সুরতহাল রিপোর্ট করে মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে দুমকি থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে নিহতের স্বামীসহ পরিবারের সবাই পালাতক রয়েছে। নিহত লামিয়া আক্তার উপজেলার লেবুখালী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের গোলাম রাব্বির স্ত্রী এবং একই উপজেলার আঙ্গারিয়া ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডে ইব্রাহিম খানের মেয়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৫-৬ বছর আগে উপজেলার লেবুখালী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ফোরকান মাতব্বরের ছেলে গোলাম রাব্বির সাথে প্রেমের সূত্রে পশ্চিম আঙ্গারিয়া গ্রামের ইব্রাহিম খানের মেয়ে মোসা: লামিয়া আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই নানা বিষয়ে তাদের মধ্যে কলহ-বিবাদ লেগেই থাকত। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে যায় এবং পুনরায় বিয়ে করে তারা সংসার করেন। হাবিবুর রহমান (৪) নামে তাদের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে।
নিহতের বড় মামা রবিউল মৃধার অভিযোগ, ভাগ্নীকে তারা (স্বামী, শাশুড়ি, ননদ ও শশুর পরিবার) পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। ঘটনার পর সেখানে গিয়ে রাব্বি কিংবা তার পরিবারের কাউকে পাইনি। আমার ধারনা তারা হত্যা করেছে। এ ব্যাপারে দুমকী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারেক মোহাম্মদ হান্নান বলেন, এ ঘটনায় দুমকি থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। তবে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Verified by MonsterInsights