সখীপুরে বল সুন্দরী বরই’র বাম্পার ফলন

সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

টাঙ্গাইলের সখীপুরে বল সুন্দরী ও ভারত সুন্দরী কুলের (বরই) বাম্পার ফলন হয়েছে

টাঙ্গাইলের সখীপুরে বল সুন্দরী ও ভারত সুন্দরী কুলের (বরই) বাম্পার ফলন হয়েছে। গত বছরের চেয়ে এ বছর অধিক লাভের স্বপ্ন দেখছেন কুল চাষি ইলিয়াস আহম্মেদ।

উপজেলার বড়চওনা ইউনিয়নের নামদারপুর গ্রামে প্রায় তিন একর জমিতে গড়ে উঠেছে এ কুলের বাগান। বাজারে এ কুলের চাহিদা ও বাজারদর বেশি থাকায় এবছর ২০ থেকে ২২ লাখ টাকার কুল বিক্রি করার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানাস কুলচাষি।

সরজমিন দেখা যায়, ছোট গাছের প্রতিটি ডালে ঝুলে আছে প্রচুর বল সুন্দরী ও ভারত সুন্দরী কুল। প্রতিদিন বাজারজাত করার জন্য কুল তুলছেন শ্রমিকরা। প্রতিটি গাছে প্রায় দেড় থেকে দুই মণ কুল ধরেছে। অন্য বছরের তুলনায় এ বছর ব্যাপক ফলন হয়েছে। যার পাইকারি বাজার মূল্য ৬০-৭০ টাকা কেজি। এছাড়া স্থানীয় হাট বাজারে খুচরা বিক্রি করা হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজি। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা পাইকারি কুল নিয়ে খোলা বাজারে বিক্রি করছেন। বাগান থেকে টাঙ্গাইলের বিভিন্ন উপজেলায় এবং ঢাকার কারওয়ান বাজারে প্রতিদিন পিকআপ ভর্তি কুল যাচ্ছে।
ইলিয়াছ আহম্মেদ প্রায় তিন একর জমিতে সাড়ে ১২ শত কুলের চারা লাগিয়েছেন। প্রথমে নিজের জমি দিয়ে শুরু করলে পরবর্তীতে পার্শ্ববর্তী জমি লিজ নিয়ে বাণিজ্যিকভাবে শুরু করেন কুলের চাষাবাদ। এখন ওই এলাকায় চারটি বাগান গড়ে তুলেছেন তিনি। তিন বছর আগে এই কুল চাষ করার উদ্যোগ নেন তিনি।

স্থানীয় বিক্রেতারা বলেন, ভারত সুন্দরী ও বল সুন্দরী দুই জাতের বড়ই বর্তমান বাজারে ব্যাপক চাহিদা। আপেলের মতো রং হয় তাই অনেকেই ভারত সুন্দরীকে বলেন আপেল কুল। দেখতে যেমন আকর্ষণীয় খেতেও তেমন খুব মিষ্টি এবং সুস্বাধু।

ইলিয়াস আহম্মেদ বলেন, লেখাপড়া শেষ করে করোনার সময় এই কুল চাষ করার উদ্যোগ নিই। দিনদিন বাগান বৃদ্ধি করছি। এ বছর যে পরিমাণ কুল আসছে তাতে ২০ থেকে ২২ লাখ টাকা বিক্রি করব বলে আশাবাদী।

হাসান ইমতিয়াজ বলেন, আমি ঘাঁটাইল থেকে আসছি ইলিয়াস ভাইয়ের কুল বাগান দেখতে। ইলিয়াস ভাইয়ের মতো এই বছর আমিও কুল চাষ করব। সেই জন্যই বাগান দেখতে ও পরামর্শ নিতে আসছি। ওনার বাগানের ফলন দেখে আমি উদ্বুদ্ধ হলাম।

সখীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিয়ন্তা বর্মণ বলেন, সখীপুরে অনেক শিক্ষিত কৃষি উদ্যোক্তা আছেন তার মধ্যে ইলিয়াস আহম্মেদ অন্যতম। ভারত সুন্দরীর আরেক নাম থাই কুল। তার কুল বাগানে মাঝে মধ্যেই আমরা গিয়ে থাকি। এ বছর ওনার বাগানে ব্যাপক ফলন হয়েছে। আমাদের ধারণা, তিনি এ বছর অনেক লাভবান হবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Verified by MonsterInsights