জয়ের পর ইমরান খানের দল ছেড়ে যাওয়া কে এই ওয়াসিম কাদির?

অনলাইন ডেস্ক

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এতে লাহোরের একটি আসন জয়ী হন ওয়াসিম কাদির। তিনি ছিলেন দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী। তবে জয়ের পরপরই পিটিআই ছাড়ার ঘোষণা দেন তিনি।দেশটির আরেক সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজে (পিএমএল-এন) যোগ দেন ওয়াসিম। এরপর ব্যাপক আলোচনায় আসেন তিনি।

ওয়াসিম এবারের জাতীয় পরিষদের প্রথম নির্বাচিত সদস্য, যিনি ফলাফল ঘোষণার পরপরই দল ত্যাগ করেন।

দল ত্যাগের ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, “আমি ওয়াসিম কাদির। লাহোর পিটিআই-এর মহাসচিব ছিলাম। আমি নিজের ঘরে ফিরে এসেছি।”
পিটিআই ক্ষমতারোহণের পরপরই ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে ইমরান খানের দলে যোগ দেন ওয়াসিম। তিনি পাঞ্জাব প্রাদেশিক পরিষদের সাবেক সদস্য (এমপিএ) প্রয়াত চৌধুরী গুলাম কাদিরের ছেলে। এর আগে নওয়াজের দল পিএমএল-এনের টিকিটেও লাহোর থেকেও এমপিএ নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

অবশ্য ৬০ বছর বয়সী এই রাজনীতিবিদের জীবনে পিটিআই দ্বিতীয় রাজনৈতিক দল ছিল না। এক দশক আগে পিএমএল-এনে যোগ দেওয়ার আগে বেনজির ভুট্টোর নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) প্রতি ওয়াসিমের আনুগত্য ছিল।

১৯৮৮ ও ২০২২ সালে এই পিপিপি’র টিকিটে ওয়াসিমের বাবা গুলাম কাদির নির্বাচনে লড়েছিলেন। গুলাম ১১ বছর ধরে তৎকালীন স্বৈরশাসক জিয়াউল হকের সামরিক আইনের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন। এরপর ১৯৮৮ সালে পিপিপি’র তৎকালীন চেয়ারপারসন বেনজীর ভুট্টো তাকে নির্বাচনে দলের মনোনয়ন দিয়ে পুরস্কৃত করেন। আস্থার প্রতিদান দিয়ে প্রায় ২৫ হাজার ভোট পেয়ে আইজেআই প্রার্থী নিসার আহমেদকে পরাজিত করে নির্বাচিত হয়েছিলেন গুলাম কাদির।

সে সময় ওয়াসিম সক্রিয়ভাবে বাবার পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন। এরপর তিনি নরওয়েতে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। তবে পিপিপি’র প্রতি ওয়াসিমের আনুগত্য বজায় ছিল।

২০০২ সালে অনুষ্ঠিত পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে তার বাবা গুলাম পিপিপি’র মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচনে অংশ নেন। তবে সেবার তিনি পিএমএল-এনের প্রার্থী সরদার আয়াজ সাদিকের কাছে হেরে যান।

২০০৭ সালের মধ্যে পিএমএল-এন নেতৃত্বের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন ওয়াসিম। ২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে নওয়াজ শরিফ ও তার ভাই শাহবাজ শরিফ তাকে দলীয় টিকিট দেন। ওই আসনে মাখদুম জাবেদ হাশমির সঙ্গে লড়াই হয়েছিল তাঁর। শেষ পর্যন্ত ওয়াসিম সহজেই জয় পেয়েছিলেন।

২০১৩ সালের সাধারণ নির্বাচনে ওয়াসিমকে মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। ২০০৮ সালে জয় পাওয়া তার আসনে প্রার্থী করা হয়েছিল বাউ আক্তারকে।

ওয়াসিম কিছুদিন পাঞ্জাবের খনি ও খনিজ পদার্থ বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৫ সালে স্থানীয় নির্বাচনের পর দল থেকে তাকে রবি টাউনের ডেপুটি মেয়রের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। সূত্র: জিও টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Verified by MonsterInsights