বিলুপ্তির মুখে ১৪ দলীয় জোট

শরিফুল ইসলাম সীমান্ত
নির্বাচন এলেই গুরুত্ব বাড়ে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরিকদের। নির্বাচন শেষে কমতে থাকে জোটের রাজনৈতিক তৎপরতা। বাড়তে থাকে আওয়ামী লীগের সঙ্গে শরিক দলগুলোর দূরত্ব। অবশেষে জোটবদ্ধ থাকার ২০তম বর্ষে এসে বিলুপ্তির মুখে পড়তে যাচ্ছে ১৪ দলীয় জোট। বিএনপি-জামায়াতের চারদলীয় জোটকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলার জন্য ২০০৪ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ও উদ্যোগে ১৪ দলীয় জোট গঠিত হয়। ‘মুক্তিযুদ্ধ, গণতন্ত্র এবং অসাম্প্রদায়িক’ আদর্শের ভিত্তিতে গঠিত এই জোটের বয়স এখন ২০ বছর। এ জোটের অন্য শরিক দলগুলো হচ্ছে- বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), গণতন্ত্রী পার্টি, সাম্যবাদী দল, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ), গণতান্ত্রিক মজদুর পার্টি, গণ-আজাদী লীগ, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন, জাতীয় পার্টি (জেপি) ও কমিউনিস্ট কেন্দ্র। এর মধ্যে গণতান্ত্রিক মজদুর পার্টি, গণ-আজাদী লীগ, কমিউনিস্ট কেন্দ্র ছাড়া বাকি সবগুলোরই নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন রয়েছে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, শরিক দলগুলো যদি এখনই দীর্ঘমেয়াদি কর্মপরিকল্পনা নিয়ে না এগোয় তবে নিজেদের ক্ষতির পাশাপাশি পরবর্তী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জন্যও অকার্যকর হয়ে উঠবে গুরুত্বপূর্ণ এই জোট।

জোটবদ্ধ থাকার ২০ বছরে চারটি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ছত্রছায়ায় থেকে ক্রমাগত অবনতি হয়েছে শরিক দলগুলোর সাংগঠনিক শক্তিমত্তা। ‘ওয়ান ম্যান পার্টি’ হিসেবে পরিচিত শরিক দলগুলোতে গড়ে উঠছে না ভবিষ্যতের জন্য কার্যকরী নেতৃত্ব। সর্বশেষ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরিক দলগুলোর ভরাডুবির পর প্রশ্ন উঠেছে জোটের প্রয়োজনীয়তা নিয়েও।
শরিক দলগুলোর সাংগঠনিক দুর্বলতার কথা স্বীকার করেন ১৪ দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমুও। জানতে চাইলে তিনি গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, শরিক দলগুলোর সাংগঠনিক দুর্বলতা নিয়ে আমাদের সভানেত্রী শেখ হাসিনাও সন্তুষ্ট নন। ১৫ বছর ক্ষমতায় থেকেও সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী হতে না পারাটা দলগুলোর ব্যর্থতা। এসব বিষয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনতিবিলম্বে ১৪ দলীয় জোটের সভা আহ্বান করবেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, আওয়ামী লীগের ওপর অত্যধিক নির্ভরতায় কমে গেছে এ জোটের শরিক দলগুলোর জনভিত্তি। জোটবদ্ধ রাজনীতিতে ছোট এ দলগুলোর সাংগঠনিক অবস্থা পৌঁছেছে তলানিতে। প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে ছোট দলের বড় নেতাদের ভাবমূর্তিও। গত দেড় দশকে দলগুলোর কয়েকজন নেতা সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী হলেও ভাঙন কাবু করে ফেলেছে কয়েকটি দলকে। শরিক দলগুলোর নাজেহাল পরিস্থিতির চিত্র ফুটে উঠেছে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলে। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের রেজাউল করিম তানসেন না জিতলে মুখ রক্ষা করাই কঠিন হতো ১৪ দলীয় জোটের আওয়ামী লীগের শরিকদের।

রাজনৈতিক মহলে আলোচনা আছে, ২০০৮, ’১৪ ও ’১৮ সালের টানা তিনটি নির্বাচনে দলের সাংগঠনিক অবস্থা ও নিজেদের মাঠের শক্তির চেয়ে ১৪ দলের শরিকরা বেশি সুবিধা পেয়েছে। আওয়ামী লীগের ওপর অতিমাত্রায় নির্ভরশীল হয়ে পড়া দলগুলো মনোযোগ দেয়নি তাদের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির দিকে। এবারের নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাও শরিক দলগুলোর সাংগঠনিক শক্তির বিপরীতে তাদের মাত্রাতিরিক্ত আসন ছাড়ের দাবি নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছিলেন। জোটবদ্ধভাবে অংশ নেওয়া গত চারটি নির্বাচনের মধ্যে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শরিক দলগুলো থেকে পাঁচজন, দশম সংসদে সংরক্ষিত দুজনসহ ১৩ জন এবং একাদশ সংসদে আটজন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ শরিক দলগুলোকে ছয়টি আসনে ছাড় দেয়। জোটের প্রতীক নৌকা নিয়ে নির্বাচন করার পরও এদের মধ্যে জয় পেয়েছেন মাত্র দুজন। এ ছাড়া গেল সংসদে জোটসঙ্গী তরিকত ফেডারেশনের একজন সদস্য থাকলেও এবার তাদের কোনো ছাড় দেয়নি আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের আগের তিন মেয়াদের সরকারে ১৪ দলের শরিক জাসদ, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় পার্টি (জেপি) ও সাম্যবাদী দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে মন্ত্রী করা হয়েছিল। এমনকি জাতীয় পার্টিরও (জাপা) কয়েকজনকে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছিল। কিন্তু এবারের মন্ত্রিসভায় এসব দল থেকে কেউই মন্ত্রিত্ব পাননি।

এমনিতেই সাংগঠনিক পরিধি ছোট, তার ওপর জোটবদ্ধ হওয়ায় এ পর্যন্ত একাধিকবার ভাঙনের শিকার হয়েছে পাঁচটি দল। এগুলো হলো- ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, গণতন্ত্রী পার্টি, সাম্যবাদী দল ও ন্যাপ।

জোটের অন্যতম শরিক সাম্যবাদী দল। ১৯৯৫ সালে অনুষ্ঠিত পার্টির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে দিলীপ বড়ুয়া সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে এখনো সেই পদে দায়িত্ব পালন করছেন। সারা দেশে ৩৪টি জেলায় পূর্ণাঙ্গ ও ২৬টি জেলায় আহ্বায়ক কমিটি থাকলেও সাংগঠনিক অবস্থা একেবারেই নাজুক সাম্যবাদী দলের। জানতে চাইলে দিলীপ বড়ুয়া বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, রাজনীতিতে উত্থান-পতন খুব স্বাভাবিক বিষয়। কীভাবে বর্তমান পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়ানো যায় সেটি নিয়ে কাজ করছি।

শরিক দলগুলোর মধ্যে একমাত্র ওয়ার্কার্স পার্টির সাংগঠনিক পরিস্থিতি খানিকটা ইতিবাচক। দলটি এবার ২৬টি আসনে প্রার্থী দিয়েছিল। ৫৭ জেলায় দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম রয়েছে। মেয়াদ রয়েছে সবগুলো কমিটিরই। পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, জোটের প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়ে যায়নি। শরিক দলগুলোর সাংগঠনিক পরিস্থিতি দুর্বল হওয়ার ফলে এবারের নির্বাচনে বেশি সংখ্যক আসন ছাড়ের বিষয়ে জোর দেওয়া সম্ভব হয়নি। বর্তমান বাস্তবতা মেনে নিয়ে নিজেদের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির দিকে নজর দিতে হবে।

জাসদের ৭৮টি সাংগঠনিক জেলা থাকলেও সারা দেশের ৬০টি জেলায় সর্বশেষ সম্মেলন হয়েছিল ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে। গত চার বছরে নতুন করে শুধু আট-নয়টি জেলার সম্মেলন হয়েছে। ৫১টি সাংগঠনিক জেলায় কার্যক্রম থাকলেও সেগুলোর সর্বশেষ পরিস্থিতি কী তা জানা নেই গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি ব্যারিস্টার আরশ আলীর। গণতান্ত্রিক মজদুর পার্টির তেমন কোনো কার্যক্রম নেই বললেই চলে। এর মধ্যে গত বছর অক্টোবরে দলটির সভাপতি জাকির হোসেন মারা গেছেন। অন্যদিকে গণ-আজাদী লীগে কার্যক্রম অনেকটাই ঘরোয়া রাজনীতিকেন্দ্রিক। এরশাদের জাতীয় পার্টি ভেঙে আলাদা হওয়া জেপিও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে। পিরোজপুর-২ আসন থেকে এতকাল নির্বাচিত হয়ে আসছিলেন দলটির চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু। তিনি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভার সদস্যও ছিলেন। এবারের নির্বাচনে তিনি আর জিততে পারেননি। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, জোটের সক্রিয়তা এবং অর্জন কমতে থাকলেও ঐক্যবদ্ধ থাকার প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়ে যায়নি। তবে আওয়ামী লীগের নির্বাচনকালীন সংকটকে কাজে লাগিয়ে ক্ষমতায় থাকার দিন ফুরিয়েছে শরিক দলগুলোর। নিজেদের দুর্বলতা কাটিয়ে ঘুরে না দাঁড়ালে পরবর্তী সংসদ নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ এই জোটের শরিক দলগুলো নামসর্বস্ব ও অকার্যকর দলে পরিণত হবে। রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সাব্বির আহমেদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দেখা যাবে পরবর্তী সংসদ নির্বাচনের আগে আবারও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে ১৪ দলীয় জোট। দল, আদর্শ ও জোটের ভবিষ্যতের স্বার্থে শরিক দলগুলোকে নিজেদের পুনর্গঠনের দিকে মনোযোগ দিতে হবে এখন থেকেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Verified by MonsterInsights