মতবিরোধ চরমে, আজ পদত্যাগ করতে পারেন ইসরায়েলি যুদ্ধকালীন মন্ত্রী গ্যান্টজ

অনলাইন ডেস্ক

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার যুদ্ধ নিয়ে ইসরায়েলি যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভায় মতবিরোধ চরম আকার ধারণ করেছে। এর জেরে পদত্যাগ করতে যাচ্ছেন মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ও যুদ্ধকালীন মন্ত্রী বেনি গ্যান্টজ। দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে এমনটিই দাবি করা হয়েছে। পাশাপাশি সরকারের ওপর থেকে তার দলের সমর্থন প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আজ শনিবার স্থানীয় সময় রাত ৮টা ৪০ মিনিটে বেনি গ্যান্টজ এ ব্যাপারে একটি বিবৃতি দেবেন।

ইসরায়েলের পাবলিক ব্রডকাস্টার কেএএন বলছে, প্রধানমন্ত্রী বেনয়ামিন নেতানিয়াহু তার যুদ্ধপরবর্তী পরিকল্পনা অনুমোদন না করার কারণে গ্যান্টজ পদত্যাগ করছেন।
গত মাসে এক টেলিভিশন ভাষণে গ্যান্টজ হুমকি দিয়েছেলেন, গাজা নিয়ে যুদ্ধপরবর্তী পরিকল্পনা অনুমোদন না দিলে তিনি পদত্যাগ করবেন। তিনি এজন্য ৮ জুন সময় বেঁধে দিয়েছিলেন। তবে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনও পদক্ষেপ নেননি নেতানিয়াহু।

এর আগে ইসরায়েলি মন্ত্রিসভায় যুদ্ধ শেষে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকাকে শাসনের জন্য ছয় দফা পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন বেনি গ্যান্টজ। গ্যান্টজের ছয় দফায় হামাসের পতন, ইসরায়েলি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের ওপর নিয়ন্ত্রণ এবং ইসরায়েলি জিম্মিদের ফিরিয়ে দেওয়াকে অন্তর্ভুক্ত করেন।

তিনি বলেন, ইসরায়েলি নিরাপত্তা নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখার পাশাপাশি আমেরিকান, ইউরোপীয়ান, আরব ও ফিলিস্তিনিদের নিয়ে একটি প্রশাসন গঠন করতে হবে যারা গাজা উপত্যকার বেসামরিক বিষয়গুলো দেখবে এবং ভবিষ্যতের বিকল্প ভিত্তি তৈরি করতে হবে যেখানে হামাস কিংবা মাহমুদ আব্বাস থাকবে না।

ইসরায়েলের সাবেক এই প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, যদি তার চাওয়া পূরণ করা না হয়, তাহলে তিনি গত বছর গাজা যুদ্ধের তদারকির জন্য গঠন করা যুদ্ধকালীন জরুরি ঐক্যের সরকার থেকে নিজের মধ্যপন্থী দলের সমর্থন তুলে নেবেন।

হিব্রু গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুসারে, গ্যান্টজের এসব দাবি পূরণ কিংবা ৮ জুনের সময়সীমার পরেও জোটে থাকা নিশ্চিত করার জন্য জোটের দলগুলোর কোনও চলমান আলোচনা বা প্রচেষ্টা দেখা যাচ্ছে না। যেহেতু বিগত তিন সপ্তাহেও সরকার তার দাবিগুলো মেনে নেয়নি বা গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা করেনি। সুতরাং এতে প্রায় নিশ্চিত করেই বলা যায়, গ্যান্টজ তার আল্টিমেটামকেই সম্মান জানাবেন।

উল্লেখ্য, বেনি গ্যান্টজ প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর অন্যতম রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ। এমনকি তিনি গত বছর যুদ্ধকালীন সরকারে অংশ নেওয়ার আগে দেশটিতে অন্যতম প্রধান বিরোধীনেতা হিসেবেও পরিচিত ছিলেন।

বিশ্লেষকেরা বলছেন, গ্যান্টজের এই সময় বেঁধে দেওয়া ইসরায়েল সরকারের মধ্যকার ফাটল আরও গভীর কর তুলেছে। এতে নেতানিয়াহু সরকারের ওপর ক্রমশ চাপ আরও বাড়বে বলেই তারা মনে করছেন।

এদিকে, হামাসের সঙ্গে বন্দী বিনিময় চুক্তি না হওয়া পর্যন্ত গ্যান্টজকে পদত্যাগ না করার আহ্বান জানিয়েছে ইসরায়েলি বন্দিদের পরিবার ও যুক্তরাষ্ট্র। সূত্র: অ্যাক্সিওস, হারেৎজ, টাইমস অব ইসরায়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Verified by MonsterInsights